হোম »  লিভিং হেলথি »  স্রেফ গাড়ির দূষণেই হাঁপানিতে ভুগছে ভারতের সাড়ে ৩ লক্ষ শিশু!

স্রেফ গাড়ির দূষণেই হাঁপানিতে ভুগছে ভারতের সাড়ে ৩ লক্ষ শিশু!

পৃথিবীর ১৯৪ টি দেশের একটি সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে এই দেশে স্রেফ ট্র্যাফিক দূষণ (Traffic pollution) ৩৫০,০০০ শিশুর হাঁপানি (asthma) রোগে ভোগে.

স্রেফ গাড়ির দূষণেই হাঁপানিতে ভুগছে ভারতের সাড়ে ৩ লক্ষ শিশু!

ট্রাফিক দূষণ সম্পর্কিত হাঁপানির সর্বোচ্চ নিজির মিলেছে চিনে, সংখ্যাটা ৭৬০,০০০

পৃথিবীর দ্বিতীয় বৃহত্তম জনসংখ্যার দেশ এই ভারতবর্ষ। যত মানুষ বাড়ে, পাল্লা দিয়ে গাড়ি বাড়ে ততই। পৃথিবীর ১৯৪ টি দেশের একটি সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে এই দেশে স্রেফ ট্র্যাফিক দূষণ (Traffic pollution) ৩৫০,০০০ শিশুর হাঁপানি (asthma) রোগে ভোগে। ল্যানসেট প্ল্যানেটারি হেলথে (Lancet Planetary Health) প্রকাশিত এই সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে যে, ট্রাফিক দূষণ সম্পর্কিত হাঁপানির সর্বোচ্চ নিজির মিলেছে চিনে, সংখ্যাটা ৭৬০,০০০। সারা পৃথিবীর মধ্যে চিন শিশু জনসংখ্যার দিক থেকে দ্বিতীয় বৃহত্তম এবং নাইট্রোজেন ডাই অক্সাইডের  (NO2) ঘনত্ব এখানে তৃতীয় সর্বোচ্চ, যা ট্রাফিক দূষণের নির্দেশক। 

মন খারাপ? ডিপ্রেশন? চাপ? মহিলারা অজান্তেই বাড়াচ্ছেন স্তন ক্যান্সারের ঝুঁকি!

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের জর্জ ওয়াশিংটন বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা বলেছিলেন, বিশাল জনসংখ্যার কারণে ভারতই চিনের পরে ঠাঁই পেয়েছে। পরবর্তী স্থানেই রয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র (২৪০,০০০), ইন্দোনেশিয়া (১৬০,০০০) এবং ব্রাজিল (১৪০,০০০)।


যুক্তরাষ্ট্রের জর্জ ওয়াশিংটন বিশ্ববিদ্যালয়ের সহযোগী অধ্যাপক সুসান সি অ্যানেনবার্গ বলেন, “আমাদের গবেষণায় বলা হয়েছে যে বিশ্বব্যাপী শহরগুলোতে বায়ু দূষণ হ্রাস করলেই শিশুদের হাঁপানি প্রতিরোধ করা যেতে পারে।"

গবেষণায় বলা হয়েছে যে, বিশ্বব্যাপী, প্রতি বছর ১০০,০০০ শিশু প্রতি ট্রাফিক দূষণ (Traffic pollution) সম্পর্কিত হাঁপানির ১৭০ টি নতুন ঘটনা উঠে আসে এবং প্রতি বছর শৈশবকালের হাঁপানি (asthma) রোগের ১৩ শতাংশই দেখা যায় ট্রাফিক দূষণের সাথেই সম্পর্কিত। 

গর্ভাবস্থায় হালকা ব্যায়ামই নিশ্চিত করবে সন্তান স্থূলত্বের শিকার হবে না, বলছে গবেষণা

দক্ষিণ কোরিয়াতে (৩১ শতাংশ) ট্রাফিক দূষণের সঙ্গে শৈশবকালীন হাঁপানি (অ্যাস্থমা) ঘটনার অনুপাত ছিল সবথেকে বেশি। যুক্তরাজ্য ২৪ তম, যুক্তরাষ্ট্র ২৫ তম, চিন ১৯ তম এবং ভারত ৫৮ তম স্থানে রয়েছে।

এই বিশেষ ক্ষেত্রে ভারত অন্যান্য দেশগুলির তুলনায় ভালো অবস্থায় কারণ অন্যান্য দূষকের (বিশেষত PM2.5) স্তরের মাত্রা বেশি হলেও ২০১০ থেকে ২০১২ সালের মধ্যে এদেশে নাইট্রোজেন ডাই অক্সাইডের (NO2) স্তর ইউরোপীয় ও মার্কিন শহরগুলির থেকে তুলনামূলক কম বলেই জানাচ্ছেন গবেষকরা।



(এনডিটিভি এই খবর সম্পাদনা করেনি, এটি সিন্ডিকেট ফিড থেকে সরাসরি প্রকাশ করা হয়েছে।)
মন্তব্য

স্বাস্থ্যের খবর সাথে সুস্থ থাকার জন্য অভিজ্ঞদের টিপস, ডায়েট পরিকল্পনা জানতে, লাইক করুন আমাদের Facebook পেজ অথবা ফলো করুন Twitter আর সাবস্ক্রাইব করুন YouTube

................... বিজ্ঞাপন ...................

................... বিজ্ঞাপন ...................

................... বিজ্ঞাপন ...................

-------------------------------- বিজ্ঞাপন -----------------------------------