হোম »  লিভিং হেলথি »  World Health Day 2019: ‘স্বাস্থ্যই সম্পদ’, জেনে নিন সুস্থ থাকার দিনলিপি

World Health Day 2019: ‘স্বাস্থ্যই সম্পদ’, জেনে নিন সুস্থ থাকার দিনলিপি

Health Day 2019: দীর্ঘ দিন ধরে একটি কথা প্রচলিত, ‘‘প্রিভেনশন ইজ বেটার দ্যান কিওর’’। অর্থাৎ সচেতন ভাবে সুস্থ জীবন যাপন করলে রোগের হাত থেকে অনেকটাই দূরে থাকা যায়।

World Health Day 2019: ‘স্বাস্থ্যই সম্পদ’, জেনে নিন সুস্থ থাকার দিনলিপি

2019 World Health Day: ময়দার পরিবর্তে আটা খাওয়ার অভ্যেস করুন

হাইলাইট

  1. মানসিক, শারীরিক, মসামাজিক ও আধ্যাত্মিক ভাবে সুস্থ থাকাই স্বাস্থ্য
  2. দানাশস্য জাতীয় খাবার খুবই স্বাস্থ্যকর
  3. নিয়মিত পর্যাপ্ত ঘুমও প্রয়োজন

মানসিক, শারীরিক, সামাজিক দিক থেকে সম্পূর্ণ ভালো থাকাকে ‘স্বাস্থ্য' বলে আখ্যা দেওয়া হয়। সুস্বাস্থ্যের কোনও বিকল্প হয় না। দীর্ঘ দিন ধরে একটি কথা প্রচলিত, ‘‘প্রিভেনশন ইজ বেটার দ্যান কিওর''। অর্থাৎ প্রথম থেকে সচেতন ভাবে সুস্থ জীবন যাপন করলে রোগের হাত থেকে অনেকটাই দূরে থাকা যায়। নিউট্রিশনিস্ট পূজা মালহোত্রা জানালেন সুস্বাস্থ্যের জন্য কী খাওয়া উচিত, কী নয়।

প্রথমে জেনে নেওয়া যাক কোন গুলি খাওয়া উচিত নয়। সেই তালিকায় প্রথমেই আসে প্যাকেটজাত এবং প্রক্রিয়াজাত খাবারের কথা। যতই প্যাকেটের গায়ে দাবি করা হোক না কেন যে এগুলো স্বাস্থ্যকর, আদতে এর মধ্যে অতিরিক্ত মিষ্টি, লবণ এবং ফ্যাটজাতীয় পদার্থ থাকে।

ময়দা বাদ দিয়ে আটা খাওয়ার অভ্যাস করুন। যে কোনও গোটা শস্যের মধ্যে উপকারিতা অনেক বেশি থাকে। সকালের খাবারে ডিমের পরোটা মিষ্টি আলু সহযোগে কিছুটা দই খাওয়া যায়। পরোটা খেতে ইচ্ছে না করলে পোহা, উপমা বা ডালিয়া দই সহযোগে খেতে পারেন।


রোজ রোজ ঘুমের ওষুধ? সতর্ক হন, বাড়ছে হাইপারটেনশনের সমস্যা

মধ্যাহ্নভোজের পাতে থাক ডাল-রুটি, সবজি স্যালাড অথবা ভাত, চানা ডাল, রাজমা কারি। আর এই একই ধরনের খাবার ফের খেতে পারেন রাতেও। অনেকে ডিনারে ভাতের বদলে রুটি সবজি এবং স্যালাড পছন্দ করেন। সেটা স্বাস্থ্যকর অভ্যাস। মাঝখানে স্ন্যাকস খেতে ইচ্ছা করলে এক গ্লাস বাটার মিল্ক, কিছু বাদাম, মরসুমী ফল অথবা হলুদ দেওয়া দুধ খেতে পারেন। কোল্ড কফিও মাঝেমধ্যে চলতে পারে। চেষ্টা করুন কর্মক্ষেত্রে বাড়ি থেকে টিফিন বানিয়ে নিয়ে যেতে।

mhss9ehg

বাজারে বিক্রি হওয় প্রক্রিয়াজাত ও প্যাকেটজাত খাবার থেকে দূরে খাকুন
ছবি সৌজন্য: আই স্টক

কোনও কারণে যদি না খাবার বানিয়ে নিয়ে যেতে না পারেন, রাস্তায় কিনে খাওয়ার ক্ষেত্রে প্রথম দিকে রাখুন ডাবের জল, লেবুর জল, বাটারমিল্ক, হারবাল টি। দিনে ১০ থেকে ১২ গ্লাস জল অবশ্যই খান, কারণ এখন গরমকাল।

স্মার্টফোন-ট্যাবলেটে মজে আছেন? নিঃশব্দে বাড়ছে ওজন

একই ধরনের খাবার রোজ খেতে একঘেয়ে লাগলেও আদতে স্বাস্থ্য ভালো রাখার জন্য এর কোনও বিকল্প নেই। আর যদি খুব একঘেয়ে লাগে এর মধ্যে সামান্য মশলা বা কোনও মরসুমী রঙিং আনাজ যোগ করে দিন। যেমন, ক্যাপসিকাম বা গাজর। তাতেই দেখবেন আপনার খাবারটি দেখতেও বেশ চটকদার হয়ে উঠবে। আসল কথা হল খিদের সময়ে পরিতৃপ্তি, এবং সেই খাবার যেন শরীরে সঠিকভাবে আত্তীকরণ হয়ে পুষ্টি যোগায়। এর জন্য সঠিক সময়ে খাবার খাওয়ার অভ্যেস করাটাও গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।

সব সময় তো আর নিয়ম মেনে চলা যায় না, তাই মাঝে মধ্যে উৎসব-অনুষ্ঠানে লাড্ডু, মিষ্টি, হালুয়া, পুরির দিকে হাত চলেই যাবে। কিন্তু সে ক্ষেত্রে মাথায় রাখুন এই খাবারগুলোও কিন্তু একটু মেপে খেতে হবে। একদিন অনিয়ম করলে তার পরে আর সাত দিন কিন্তু কোনও অনিয়ম চলবে না।

দিনে আট ঘণ্টা ঘুম, কাজের ফাঁকে একটু গান শোনা, হালকা ব্যায়াম এবং মেডিটেশনের মাধ্যমে সুস্থ থাকুন।

বিশ্ব স্বাস্থ্য দিবস-এ আপনাদের সকলের জন্য রইল সুস্বাস্থ্যের পথ নির্দেশ।

মন্তব্য

স্বাস্থ্যের খবর সাথে সুস্থ থাকার জন্য অভিজ্ঞদের টিপস, ডায়েট পরিকল্পনা জানতে, লাইক করুন আমাদের Facebook পেজ অথবা ফলো করুন Twitter আর সাবস্ক্রাইব করুন YouTube

................... বিজ্ঞাপন ...................

................... বিজ্ঞাপন ...................

 

................... বিজ্ঞাপন ...................

-------------------------------- বিজ্ঞাপন -----------------------------------