হোম »  লিভিং হেলথি »  সারাক্ষণ দুশ্চিন্তায় ভোগেন? চিন্তামুক্তির সহজ দাওয়াই এখানে...

সারাক্ষণ দুশ্চিন্তায় ভোগেন? চিন্তামুক্তির সহজ দাওয়াই এখানে...

সাধারণত, শিল্পী মনের মানুষরাই যখন তখন ডুব দেন কল্পনার দুনিয়ায়। কিন্তু যিনি এই পথ না মাড়িয়ে অহেতুক অতি কল্পনা করে উদ্বেগে ভোগেন, সেটাই অতি চিন্তার

সারাক্ষণ দুশ্চিন্তায় ভোগেন? চিন্তামুক্তির সহজ দাওয়াই এখানে...

নিয়ন্ত্রণের বাইরে ঘটা ঘটনাই আপনার অতি চিন্তার কারণ

হাইলাইট

  1. যখনই মাথায় চিন্তা ভিড় করবে নিজেকে অন্যমনস্ক করুন
  2. চিন্তা কমাতে ধ্যান অভ্যেস করুন
  3. যা আপনার বশে নেই তাই নিয়ে চিন্তা অনর্থক

ভাবুক আর অতি চিন্তা কিন্তু এক নয়। অনেকেই ভাবনা বিলাসী হন। নিজের মনে কল্পনার জগৎ গড়ে নিয়ে তার আনাচেকানাচে বিহার করতে ভালোবাসেন। সাধারণত, শিল্পী মনের মানুষরাই যখনতখন ডুব দেন কল্পনার দুনিয়ায়। কিন্তু যিনি এই পথ না মাড়িয়ে অহেতুক উদ্বেগে ভোগেন, সেটাই অতি চিন্তা (overthinker)। ঘুমের মধ্যেও এঁদের মস্তিষ্ক চিন্তা করে চলে (brain tends to work subconsciously)। অর্থাৎ, বিশ্রাম পায় না। অকারণ চিন্তা, এঁদের অভ্যাসে পরিণত হয়। যার থেকে অনেক রকমের মানসিক, শারীরিক সমস্যায় আক্রান্ত হই আমরা। কাজেরও ক্ষতি হয় অনেক। এক সময় মাথা ঠিকমতো কাজ করে না। তাই সমস্যা জটিল হওয়ার আগে সমাধানের পথ খুঁজুন আগেভাগেই----

১. পেছনে নয়, সামনে তাকান: অতীত জীবনের ভুল-ত্রুটি যত আঁকড়ে থাকবেন ততই বর্তমানের থেকে পিছিয়ে যাবেন। তার থেকে 'যা গেছে তা যাক' বলে আজকের দিন উপভোগ করুন।

২. অতীতের ছায়া পড়তে দেবেন না: অতীতে ঘটা অঘটন ভবিষ্যতে ছায়া ফেলতে পারে, এই ভয়ে কুঁকড়ে থাকলে বাঁচবেন কীভাবে? আর তো আপনার সঙ্গে খারাপ কিছু না-ও হতে পারে!


আপনি কেন অহেতুক চিন্তা করেন?

Health Tips: ডায়াবেটিস, ব্লাডপ্রেসার কমায়, আর কী কী উপকার করে ঘি?

নানা কারণে এমনটা ঘটতে পারে:

১. কারোর সঙ্গে মনোমালিন্য হলে আপনি সারাক্ষণ ভাবতে থাকেন তার ফলাফল নিয়ে। অন্যরা কী ভাবছে বা অজান্তে আপনার আচরণ কাউকে আঘাত করছে কিনা তাই নিয়েও ভাবেন। 

২. কোনও তর্কে হেরে গেলে নতুন করে মনে মনে ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটিয়ে ভাবতে বসেন কী করলে আপনি জিততেন।  

৩. আতঙ্কে থাকেন, পরিস্থিতি বোধহয় নিয়ন্ত্রণে চলে যাচ্ছে।

hhtn6hcg

সবেতেই উদ্বেগ অতিচিন্তা বাড়ায়
সৌজন্যে:আই স্টক

৪. লোকে যা বলল বা করল তাঁর নেপথ্য কারণ খুঁজতে গিয়ে অতি চিন্তা আসে। 

৫. অন্যের থেকে আরও ভালো কী করে করবেন ভাবতে গিয়েও চিন্তা বাড়ে।

৬. যদি, কিন্তু-র জালে জড়িয়ে বরবাদ আপনি।

৭. বারেবারে জীবনে ঘটে যাওয়া ভুল পদক্ষেপ নিয়ে চিন্তা।

৮. অতীতচারণ অতি চিন্তার কারণ।

World Breastfeeding Week 2019: স্তন্যপান নিয়ে কী বার্তা দিলেন নেহা ধুপিয়া?

কীভাবে চিন্তামুক্ত হবেন?

প্রথমেই জেনে নিন, এই দলে আপনি একা নন। দুনিয়ার অধিকাংশ মানুষ এভাবেই সারাক্ষণ দুশ্চিন্তায় ভুগছেন। তাই ঘাবড়ে না গিয়ে অভ্যেস করুন চিন্তা থেকে নিজেকে মুক্ত রাখার উপায়। মেনে চলুন কিছু সহজ টিপস---

১. সমাধান খুঁজুন

সমস্যার কথা না ভেবে সমাধানের রাস্তা খুঁজুন। তাহলে সমস্যা সমাধানের পাশাপাশি আপনিও চিন্তামুক্ত থাকবেন। 

64p5euoo

সমাধানের রাস্তা খুঁজুন
সৌজন্যে: আই স্টক

২. বুঝেসুজে চিন্তা করুন

যেটা আপনার বশে সেটা নিয়েই ভাবুন। যা নিয়ন্ত্রণের বাইরে তাকে নিয়ে ভেবে কী করবেন! এভাবে চিন্তাকে বোধবুদ্ধির ছাঁকনিতে ফেলে ছাঁকুন। চিন্তার পাহাড় আপনা থেকেই কমবে।

Low Carb Diet For Weight Loss: ডায়েটে কার্ব বাদ ওজন কমবে ঝটাপট

৩. নিজেকে চিনুন

আপনি জানেন কোন পরিস্থিতিতে আপনার প্রতিক্রিয়া কেমন? সেই বুঝে আপনি কোন কাজের ফল কী হবে বা ভবিষ্যতে কী ঘটবে আগাম বুঝে নিন। চিন্তা নিজে থেকেই গায়েব।  

৪. ধ্যান

মনকে চিন্তামুক্ত রাখতে এর বিকল্প নেই। নিয়মিত আধঘণ্টা মেডিটেশন বা ধ্যান করলে মনকে বশে রাখতে পারবেন সহজেই। 

৫. চিন্তার জাল ছিঁড়ুন

যখনই দুশ্চিন্তা আসবে নিজেকে অন্য কাজে ব্যস্ত করে নিন। আপনার পছন্দের কাজ বা হবিতে ডুবিয়ে দিন নিজেকে। ভালো লাগবে। দেখবেন, চিন্তা কখন ছেড়ে চলে গেছে আপনাকে। 

Also read: How Stress In Early Life Can Lead To Depression Later

৬. কথা বলুন

মনের মধ্যে জমে থাকা যন্ত্রণা বা চিন্তা খুলে বলুন কাছের মানুষকে। তাঁর মতামত নিন। অনেকটাই ভারমুক্ত হবেন। তবে এমন মানুষ পাওয়া আজকের দিনে সত্যিই দুর্লভ। যে নিজের স্বার্থ না দেখে আপনার ভার নেবেন। 

সতর্কীকরণ: এই নিবন্ধের জন্য কর্তৃপক্ষ দায়ী নন। তথ্য অনুসরণের আগে বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নেওয়া তাই বাঞ্ছনীয়।



(এনডিটিভি এই খবর সম্পাদনা করেনি, এটি সিন্ডিকেট ফিড থেকে সরাসরি প্রকাশ করা হয়েছে।)
মন্তব্য

স্বাস্থ্যের খবর সাথে সুস্থ থাকার জন্য অভিজ্ঞদের টিপস, ডায়েট পরিকল্পনা জানতে, লাইক করুন আমাদের Facebook পেজ অথবা ফলো করুন Twitter আর সাবস্ক্রাইব করুন YouTube

................... বিজ্ঞাপন ...................

................... বিজ্ঞাপন ...................

 

................... বিজ্ঞাপন ...................

-------------------------------- বিজ্ঞাপন -----------------------------------