হোম »  ক্যান্সার »  প্রতি ২৮ জনে একজন মহিলা ভুগছেন স্তন ক্যানসারে, আপনি নিজেকে পরীক্ষা করছেন তো?
পড়ুন | READ IN

প্রতি ২৮ জনে একজন মহিলা ভুগছেন স্তন ক্যানসারে, আপনি নিজেকে পরীক্ষা করছেন তো?

স্তন ক্যান্সারে প্রাথমিকভাবে স্তনের ভিতর দুই সেন্টিমিটার পর্যন্ত টিউমার তৈরি হতে থাকে এবং এর ফলে চিনচিনে ব্যথা, জ্বালা শুরু হতে পারে।

প্রতি ২৮ জনে একজন মহিলা ভুগছেন স্তন ক্যানসারে, আপনি নিজেকে পরীক্ষা করছেন তো?

Breast cancer in women: 

সময় থাকতে থাকতেই স্তনের ক্যানসার নিয়ে সচেতন না হলে মহিলাদের ক্ষেত্রে ভয়াবহ আকার নিতে পারে এই রোগ। প্রতি ২৮ জন মহিলার মধ্যে একজন ভারতে স্তন ক্যানসারে আক্রান্ত হন। এর অন্যতম কারণ হল সচেতনতার অভাব। পাটনার সভেরা ক্যান্সার ও মাল্টিস্পেশ্যালিটি হাসপাতালের বিখ্যাত ক্যান্সার রোগ বিশেষজ্ঞ ডাঃ বি পি সিং বলেন, "আমাদের দেশে আজও মহিলারা নিজের শরীর নিয়ে সচেতন নন। সম্প্রতি এক গবেষণায় দেখা গেছে যে, শহরাঞ্চলে প্রতি ২২ জন মহিলার মধ্যে একজন এই রোগে আক্রান্ত হন, অন্যদিকে গ্রামের মধ্যে ৬০ জন মহিলার মধ্যে একজন স্তন ক্যান্সারের সাথে যুঝতে থাকেন।

তৃতীয় পর্যায়ের পেরিটোনিয়াল ক্যানসারে আক্রান্ত নাফিসা আলি। জেনে নিনে এই রোগের কিছু দিক


তিনি আরও বলেন যে, ভারতের ক্যান্সারের বিষয়টি পশ্চিমী দেশগুলির থেকে ভিন্ন। ভারতে স্তন ক্যান্সারের সমস্যা ৩০ থেকে ৪০ বছর বয়সে বেশি দেখা যায়, অথচ পশ্চিমের দেশে এটি ৫০ বছরের বেশি বয়সী মহিলাদের হয়। ভারতে স্তন ক্যানসারের প্রতি সচেতনতা এবং সঠিক সময়ে চিকিৎসার যথেষ্ট অভাব দেখা যায়। শেষ সময়ে ধরা পড়ায় তা রোগী এবং তাদের পরিবারকে মানসিকরূপে ভেঙে দেয়। বি পি সিং বলেন, "গত কয়েক বছর ধরে দেখা যাচ্ছে ভারতে স্তন ক্যান্সারে বেশি আক্রান্ত হচ্ছেন ৫০ বছরের কম বয়সী মহিলারাই। সচেতনতার অভাবে এমন সময়ে তা ধরা পড়ছে যখন ক্যানসার তৃতীয় বা চতুর্থ পর্যায়ে চলে যাচ্ছে, রোগীর জন্য তা বিপজ্জনক হয়ে পড়ছে।"

তাহিরা স্টেজ জিরো স্তন ক্যানসারে আক্রান্ত- কী এই ক্যানসার? কী চিকিৎসা?

তাঁর দাবি যদি প্রাথমিক পর্যায়েই এই রোগ ধরা পড়ে তাহলে চিকিৎসা করাও সহজ হয়ে যায় এবং প্রায় ৮০ শতাংশ রোগী ঠিক হয়ে যান। গ্রামাঞ্চলে আজও এসব রোগের ক্ষেত্রেও মানুষ ওঝা গুণিনের উপরেই আস্থা রাখেন। অবিলম্বে বিশেষজ্ঞের সাথে যোগাযোগ করা উচিৎ এই বিষয়ে। স্তন ক্যান্সারে প্রাথমিকভাবে স্তনের ভিতর দুই সেন্টিমিটার পর্যন্ত টিউমার তৈরি হতে থাকে এবং এর ফলে চিনচিনে ব্যথা, জ্বালা শুরু হতে পারে।

তিনি বলেন, "যদি প্রাথমিক পর্যায়ে ধরা পড়ার পর এই রোগীর চিকিত্সা চলতে থাকে, তাহলে স্রেফ অপারেশনেই প্রতিকার সম্ভব। এছাড়াও কেমোথেরাপি এবং রেডিওথেরাপির মাধ্যমে চিকিৎসা রয়েছে। কেবলমাত্র সচেতন হওয়ার প্রয়োজন। নিজের শরীর নিজের কাছে মূল্যবান হোক।"

স্বাস্থ্যের আরও খবর এখানে 



(এনডিটিভি এই খবর সম্পাদিত করেনি, এটি সিন্ডিকেট ফিড থেকে সরাসরি প্রকাশ করা হয়েছে.)
মন্তব্য

স্বাস্থ্যের খবর সাথে সুস্থ থাকার জন্য অভিজ্ঞদের টিপস, ডায়েট পরিকল্পনা জানতে, লাইক করুন আমাদের Facebook পেজ অথবা ফলো করুন Twitter আর সাবস্ক্রাইব করুন YouTube

................... বিজ্ঞাপন ...................

................... বিজ্ঞাপন ...................

 

................... বিজ্ঞাপন ...................

................... বিজ্ঞাপন ...................

-------------------------------- বিজ্ঞাপন -----------------------------------